উপজেলা হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা কমিটি থাকলেও দীর্ঘ ১২ বছর পর সোমবার ওই কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ে নির্দেশনা অনুযায়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা সেবার মান উন্নয়ন ও ইউনিয়ন পর্যায়ের চিকিৎসাকেন্দ্রগুলো সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা কমিটির নিয়মিত সভা হওয়ার কথা থাকলেও দীর্ঘদিন থেকে কোন সভা অনুষ্ঠিত হয়নি।

একযুগ পর গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে পূর্ণাঙ্গ কমিটির সভায় জেলা শহর থেকে দেশের সবচেয়ে দূরবর্তী উপজেলা জকিগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরাঝীর্ণ অবস্থা ও বিভিন্ন ধরনের বঞ্চনার কথা তুলে ধরেন বক্তারা।

সিলেট শহরের পার্শ্ববর্তী গোলাপগঞ্জ, বিয়ানীবাজার উপজেলাগুলোর সরকারি হাসপাতাল ২০০৫ সালে ৫০ শয্যায় উত্তীর্ণ করে সেবা দিয়ে আসলেও সবচেয়ে দুরবর্তী উপজেলা এখনো বাস্তবে ৫০ শয্যায় উন্নীত হয়নি। যে কারণে জনদুর্ভোগ চরমে। কাগজেপত্রে জকিগঞ্জ হাসপাতালে কর্মরত থেকে একজন গাইনী বিশেষজ্ঞ সায়েকা রেহনুমা, এনেস্থেসিয়া ডা. জাহিদ হোসেন দীর্ঘদিন থেকে পদ জুড়ে বসে কিভাবে সিলেট শহরে প্রাইভেট প্র্যাকটিস করছেন আর এখান থেকে বেতন নিচ্ছেন এ নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।

জকিগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি আবুল খায়ের চৌধুরীর এ প্রশ্নের জবাবে কমিটির সভাপতি সাংসদ মোহাম্মদ হুছামুদ্দিন চৌধুরী তাৎক্ষণিক স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে বিষয়টি জানালে তিনি বিষয়টি দেখছেন বলে আশ্বস্ত করেন।

নব নির্বাচিত সাংসদ মোহাম্মদ হুছামুদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শেখ মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ পরিচালিত সভায় বক্তব্য রাখেন, কমিটির সহ-সভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান লোকমান উদ্দিন চৌধুরী, সদস্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আফসানা তাসনিম, উপজেলা নারী ভাইস চেয়ারম্যান মাজেদা রওশন শ্যামলী, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মাও. আব্দুস ছবুর, ওসি জাবেদ মাসুদ, আবাসিক মেডিকেল অফিসার ড. শহীদুল ইসলাম, ডা. ঝিনুক পুরকায়স্থ, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা রাজিয়া সুলতান, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডার খলিলুর রহমান, জকিগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি আবুল খায়ের চৌধুরী, ইউপি চেয়ারম্যান মহসিন মর্তুজা চৌধুরী, মাও. আপ্তাব উদ্দিন প্রমুখ।