জকিগঞ্জে মামলা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে বসতঘরে হামলার ঘটনা ঘটেছে। হামলায় ওই ঘরের বাসিন্দা স্বামী-স্ত্রী আহত হয়েছেন। আজ সোমবার (২৩ নভেম্বর) বিকেলের দিকে জকিগঞ্জ পৌর এলাকার পশ্চিম আনন্দপুর গ্রামে এ হামলার ঘটনা ঘটে। হামলায় আহতরা হলেন- স্থানীয় যুবলীগ নেতা আনোয়ার সিরাজী (৩২) ও তার স্ত্রী নিলুফা বেগম (২৬)। খবর পেয়ে জকিগঞ্জ থানার পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মামলা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে পশ্চিম আনন্দপুর গ্রামের মছদ্দর আলীর পুত্র জামাল হোসেন মুস্তাকিম এবং তার স্ত্রী ও শ্যালকরা মিলে দেশীয় অস্ত্রসহ ছোটভাই আনোয়ার সিরাজীর বসতঘরে হামলা চালান। একপর্যায়ে আনোয়ার সিরাজী প্রাণরক্ষায় ঘরের দরজা বন্ধ করে দেন। এরপর মুস্তাকিম গংরা দরজা ভেঙে ঘরে প্রবেশ করে আনোয়ার সিরাজী ও তার স্ত্রীর ওপর হামলা চালিয়ে আসবাবপত্র ভাংচুর করে। হামলায় সিরাজীর মাথা ও পা এবং তার স্ত্রী নিলুফারের মাথাসহ শরীরের অন্যান্য স্থানে রক্তাক্ত জখম হয়। তারা জকিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।

যুবলীগ নেতা আনোয়ার সিরাজী অভিযোগ করে জানান, হামলার সময় প্রতিপক্ষের লোকজন তার স্ত্রীর শ্লীলতাহানীসহ দুধের শিশুকে প্রাণে মারার চেষ্টা করেছে। মুস্তাকিম গংরা নিলুফারের গলায় থাকা স্বর্ণের চেন ছিড়ে নিয়েছে। ভাংচুরে বসতঘরের প্রায় ৩০ হাজার টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এ ঘটনায় তিনি মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানান।

এ ব্যাপারে জানার জন্য অনেক চেষ্টা করেও অভিযুক্ত মুস্তাকিমের সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি।

জকিগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর মো. আব্দুন নাসের জানিয়েছেন, পারিবারিক বিরোধের জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে। সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত কেউ লিখিত অভিযোগ করেনি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।