জকিগঞ্জের লুৎফর রহমান স্কুল এন্ড কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী ফাতেমা বেগম বাসগাড়ির চাপায় মৃত্যু ও সহপাঠী কাজী সাদিকা আক্তার আহত হওয়ার ঘটনায় বাস চালক দুলাল আহমদ (২৮)-কে ও চালকের সহযোগী (হেলপার) সামছুদ্দিন সাবু মিয়াকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার (২ সেপ্টেম্বর) ভোরে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের আওতাধীন শাহপরাণ (রহ.) থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত দুলাল জকিগঞ্জের বারঠাকুরী ইউনিয়নের সোনাসার এলাকার মৃত মকরম আলীর ছেলে। আর সাবু জকিগঞ্জের মানিকপুর ইউপির কলাকুটা এলাকার শাহজালালপুর গ্রামের আব্দুল হান্নানের ছেলে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেন জকিগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মোশাররফ হোসেন। তিনি বলেন, ‘গত মঙ্গলবার দুপুর দুইটার দিকে আটগ্রাম স্টেশনে অনিকা এন্টারপ্রাইজ নামের যাত্রীবাহী বাসগাড়ি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে কলেজছাত্রী ফাতেমা বেগমকে পিষ্ট করে একটি দোকানে ঢুকে পড়ে। ঘটনাস্থলেই ফাতেমার মৃত্যু হয়। এ সময় কাজী সাদিকা নামের আরেক কলেজছাত্রী গুরুতর আহত হয়। ঘটনার পরপরই শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী বিক্ষুব্ধ হয়ে প্রায় ৪ ঘণ্টা সড়ক অবরোধ করে গাড়ি ভাঙচুর করেন। পরে পুলিশ অভিযুক্তদের দ্রুত গ্রেফতারের আশ্বাস দিলে অবরোধ প্রত্যাহার করে নেন বিক্ষুব্ধরা।

এ ঘটনায় লুৎফর রহমান স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ ছালিক আহমদ বাদী হয়ে বাসচালক দুলাল আহমদ ও হেলপার সাবু মিয়াকে অভিযুক্ত করে জকিগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। থানার মামলা নং ২০, তারিখ- ৩১/০৮/২২ ইং।

‌মসজিদের শহর বিয়ানীবাজার।। পর্ব#৫০।। আভঙ্গী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ