তীব্র গরমে মানুষ যখন চরম বিপর্যস্ত ঠিক তখনই দমকা ঝড়ো হাওয়৷ এর কিছুক্ষণ পর তীব্রবেগে শুরু হয় ঝড় বৃষ্টি। সোমবার সন্ধ্যার আগে ঝড়ের তীব্রতায় উপজেলার অনেক এলাকায় গাছপালা ভেঙে গিয়ে রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়। দীর্ঘ সময় বিভিন্ন রাস্তায় যানবাহন চলাচল করতে পারেনি। পরে গাছ গুলো রাস্তা থেকে সরিয়ে নেয়ায় অনেকটা স্বাভাবিক হয় যান চলাচল।

গাছপালা বিদ্যুতের তারে পড়ে যাওয়ার কারণে বিকেল থেকে বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন রয়েছে উপজেলার সব ক’ টি এলাকা। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায় সিলেট আটগ্রাম জকিগঞ্জ সড়কের অনেক স্থানে গাছ ভেঙে পড়ে যানচলাচলে মারাত্মক বিঘ্ন ঘটে। গাড়ির যাত্রী ও স্থানীয়দের সহায়তায় যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আতাউর রহমান জানান এ পর্যন্ত পুরো উপজেলায় ক্ষয়ক্ষতির খবর জানা সম্ভব হয়নি। তবে কাজলসার ইউনিয়নে দুই তিনটি ঘরের চাল উড়ে নিয়ে গেছে বলে খবর পেয়েছি। অনেক জায়গায় গাছপালা ভেঙে পড়েছে। ধারণা করা হচ্ছে কাঁচাঘরবাড়ি ধ্বসে পড়ছে অনেক এলাকায়।

এবিটিভির সর্বশেষ প্রতিবেদন-

বিয়ানীবাজারে বাড়ছে করোনার সংক্রমণ, স্বাস্থ্যবিধি নিয়ে উদাসীন মানুষ