গোলাপগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা এহতেশামুল হক শাহিন হত্যার ঘটনায় রায়হান আহমদ অনিক (২০) নামের আরেক আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে গোলাপগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ।

সোমবার (৩ মে) ভোরে সিলেট নগরীর শিবগঞ্জ এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। রায়হান আহমদ অনিক বিশ্বনাথ উপজেলার বাহারা দুভাগ গ্রামের আহম্মদ আলীর পুত্র।

গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গোলাপগঞ্জ মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) নাজমুল হাসান। তিনি বলেন, শাহিন হত্যার সাথে জড়িত গ্রেপ্তারকৃত আসামিদের তথ্যের ভিত্তিতে রায়হানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত এ মামলায় মোট ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

জানা যায়, গত ২২ মার্চ রাতে জরুরি কাজ শেষ করে ঢাকা থেকে বাড়িতে ফিরছিলেন গোলাপগঞ্জের হেতিমগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ী, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা এহতেশামুল হক শাহিন। সিলেটে নেমে তিনি সিএনজি যোগে বাড়ি পথে যাত্রা করলে নিজ গ্রাম হাজীপুর লরিফর রাস্তার ভিতরে প্রবেশ করা মাত্র মুখোশধারী অজ্ঞাত কয়েকজন সন্ত্রাসী রাস্তায় কলাগাছ ফেলে গাড়ির গতিরোধ করে। তারা দেশীয় অস্ত্র দিয়ে হামলা চালায় শাহিনের উপর। এসময় শাহিনের সাথে সন্ত্রাসীদের ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে সন্ত্রাসীরা শাহিনকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে খুন করে পালিয়ে যায়। পরে শাহিনকে গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

শাহিন হত্যার ঘটনায় পরের দিন তার ছোট ভাই ইফতেখারুল হক সবুজ অজ্ঞাত কয়েকজন আসামি করে গোলাপগঞ্জ মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা (নং-২৮/ ২৩.০৩.২০২১ইং) দায়ের করেন।

এবিটিভির সর্বশেষ প্রতিবেদন-

দীর্ঘ সময় দোকান খোলা রেখে কাজ করতে চান বিয়ানীবাজারের দর্জি দোকানিরা