গোলাপগঞ্জে বাড়ির ট্যাংকের পানি খেয়ে একই পরিবারের ৬ জন অসুস্থ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। বুধবার (৭ এপ্রিল) বেলা আড়াইটার দিকে তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। ঘটনাটি উপজেলা ঢাকা দক্ষিণ ইউনিয়নের দক্ষিণ দত্তরাইল গ্রামের প্রবাসী মুজিবুর রহমানের বাড়িতে ঘটেছে।

মঙ্গলবার দিবাগত রাতের কোনো এক সময় কে বা কারা বাড়ির পানির ট্যাংকে চেতনানাশক ওষুধ মিশিয়ে রাখায় সে পানি খেয়ে ওই পরিবারের ৬ সদস্য অচেতন ও অসুস্থ হয়ে পড়েন বলে প্রাথামিকভাবে ধারনা করছে পুলিশ।

বুধবার বিকেলে গোলাপগঞ্জ থানাপুলিশ মুজিবুর রহমানের বাড়ি পরিদর্শন করেছে।

অসুস্থ হওয়া ৬ জন হচ্ছেন- ফ্রান্স প্রবাসী মুজিবুর রহমানের মা শিরীন আক্তার (৭৫), পুত্রবধূ জোছনা আক্তা (৩২), মেয়ে সাদিয়া শারমিন (২৫), উমামা (৭), জেলি বেগম (৩০) ও ছেলে গালিব আহমদ (১৮)।

স্থানীয়রা জানান, মুজিবুর রহমানের পরিবারের সদস্যরা বুধবার বেলা ২টা পর্যন্ত ঘুম থেকে না ওঠায় প্রতিবেশিদের মনে সন্দেহ জাগে। পরে প্রতিবেশিরা দরজায় ডাকাডাকি করলে ওই পরিবারের একজন কোনোমতে দরজা খুলে দেন। তাদের অবস্থা দেখে বেলা আড়াইটার দিকে ওই ৬ জনকে গোলাপগঞ্জ ধারাবহরস্থ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রেরণ করেন স্থানীয়রা। এ রিপোর্ট (সন্ধ্যা ৬টা) পর্যন্ত তারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন।

এদিকে, খবর পেয়ে বুধবার বিকেলে মুজিবুর রহমানের বাড়ি পরিদর্শন করেছে গোলাপগঞ্জ থানার একদল পুলিশ। এসময় পুলিশ জানায়, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা যাচ্ছে- মঙ্গলবার দিবাগত রাতের কোনো এক সময় কে বা কারা বাড়ির পানির ট্যাংকে চেতনানাশক ওষুধ মিশিয়ে রাখে। রাতে সে পানি খেয়ে ওই পরিবারের ৬ সদস্য অচেতন ও অসুস্থ হয়ে পড়েন। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে এবং আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পরে ঢাকা দক্ষিণ ইউপি চেয়ারম্যান এস.এম আবদুর রহিমও ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

এবিটিভির সর্বশেষ প্রতিবেদন-

গোলাপগঞ্জে কৃষকদের মধ্যে কম্বাইন হারভেস্টারসহ কৃষিযন্ত্র বিতরণ