গোলাপগঞ্জে ২৪ ঘন্টার ব্যবধানে দু’জনের আত্মহত্যার খবর পাওয়া গেছে। একদিনে দু’টি আত্মহত্যায় উপজেলা জুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হযেছে। দু’জনের মধ্যে একজন পুরুষ ও মহিলা রয়েছেন। এ নিয়ে জনমনে বিভিন্ন প্রতিক্রিয়ারর সৃষ্টি হয়েছে।

গৃহবধুর আত্মহত্যা : সোমবার সকালে ভাদেশ্বর দক্ষিণগাও এলাকার কুহিনুর বেগম(৩৫) নামে এক মহিলা অজানা কারণে বিষ পান করে আত্মহত্যা করেন। তিনি ঐলাকার মৃত রহিম আলীর স্ত্রী। গত রোববার রাতে উপজেলার ভাদেশ্বর ইউনিয়নের দক্ষিণভাগের দক্ষিণ গাঁও গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে।  খোজ নিয়ে জানা যায়, তিনি এলাকার বিভিন্ন বাসা-বাড়ীতে ঝিয়ে’র কাজ করতেন জীবিকা নির্বাহস করতেন। এলাকাবাসীর ধারণা পারিবারিক অশান্তি কারণে এ ঘটনাটি ঘটতে পারে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বিকেল ৪টা লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সিলেট ওসমানী মেডেকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে রয়েছে।
এলাকার সূত্রে জানা গেছে, রোববার রাত কোন এক সময় গৃহবধু কিটনাশক জাতিয় কিছু পান করেন। এর তিনি অসুস্থতাবোধ করলে তাকে সোমবার সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এখানে যাওয়ার পর পরই তিনি মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন। স্থানীয় ইউপি মেম্বার সৈয়দ সাঈদ উদ্দিন প্রতিবেদককে ঘটনাটি নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনা শুনে আমি নিহতের বাড়িতে গিয়েছে। তবে কি কারণে তিনি আত্মহত্যা করলেন এ ব্যপারে নিশ্চিত হওয়া যায়নি বলে জানান তিনি।
ব্যক্তির আত্মহত্যা : অপরদিকে গতকাল সোমবার উপজেলার বাঘা ইউনিয়নের তুড়–কভাগ নয়াবস্তিতে  এলাকায় মঈন উদ্দিন(৪০) গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। তিনি ঐ এলাকার মনির উল্লাহর পুত্র বলে জানা গেছে। অজানা কারনে দুপুর ১২টায় নিজ ঘরে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেন বলে সংবাদ পাওয়া গেছে।