কুয়েতের একটি হাসপাতালে ২২দিন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থেকে অবশেষে মারা গেলেন জমির উদ্দিন। কুয়েত প্রবাসী জমির উদ্দিনের বাড়ি বিয়ানীবাজার উপজেলার দাসউরা গ্রামে। তিনি ওই গ্রামের বুরহান উদ্দিনের পুত্র। তাঁর মৃত্যু সংবাদ বাড়িতে পৌঁছেলে পরিবারের সদস্য ও নিকট আত্মীয়দের মধ্যে শোক নেমে আসে। জমির উদ্দিন (৪৫) একমাত্র পুত্র সন্তানের জনক।

গত ১২ এপ্রিল সকালে কুয়েত জিলিব আল সুয়েখের হাসাবিয়া এলাকা থেকে কোম্পানির কাজে যাওয়ার জন্য রাস্তা পার্শ্বে গাড়ীর জন্য অপেক্ষা ছিলেন জমির উদ্দিন। হঠাৎ দ্রুত গতির একটি মাইক্রোবাস এসে জমির উদ্দিনকে চাপা দিলে তিনি গুরুতর আহত হন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে আশংকাজনক অবস্থা তাকে উদ্ধার করে ফরওয়ানীয়া হাসপাতালে ভর্তি করে। দীর্ঘ ২২ দিন হাসাপাতালে হিকিৎসাধীন অবস্থায় থেকে গত ৪ মে সকালে মারা যান। বর্তমানে নিহত জমিরের লাশ ফরওয়ানিয়া হাসপাতাল মর্গে রয়েছে।

নিহত জমিরের নিকট আত্মীয় মোস্তফা আহমদ জানান,  জমির উদ্দিন দীর্ঘ ২৬ বছর থেকে  জিটিসি প্রিন্ট নামক একটি কোম্পানিতে কর্মরত ছিলেন। তার মরদেহ দেশে পাঠানোর জন্য প্রয়োজনীয় কাগজ তৈরী করা হচ্ছে। এসব প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলে লাশ দেশে পাঠানো হবে।
এদিকে জমির উদ্দিনের মৃত্যু সংবাদ বাড়িতে পৌঁছালে শোক নেমে আসে। পরিবারের লোকজন তার মরদেহ দেশে আসার অপেক্ষা রয়েছেন।