সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়ার একদিন পর কানাইঘাট সদর ইউনিয়নের বীরদল ভাড়ারিফৌদ গ্রামের ফৌজিয়া বেগম (৫০) এর করোনা রিপোর্ট পজেটিভ এসেছে।

ফৌজিয়া বেগমের এক স্বজন জানান, পেটের পীড়াজনিত কারণে ভাড়ারিফৌদ গ্রামের মৃত আব্দুস সালামের স্ত্রী ৬ সন্তানের জননী ফৌজিয়া বেগমকে গত ৭ জুন কানাইঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসার দেয়ার পর ফৌজিয়া বেগমকে তার বাড়িতে নিয়ে আসার পর তার পেটের পীড়া বেড়ে যাওয়ার ১১ জুন সিলেটের পাইওনিয়ার হসপিটালে ফৌজিয়া বেগমকে ভর্তি করা হয়।

সেখান থেকে ১৩ জুন ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে ১৪ জুন তার করোনার নমুনা সংগ্রহ করা এবং ১৭ জুন রাত ১১টার দিকে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ফৌজিয়া বেগম সেখানে মারা যান। পরবর্তীতে ১৮ জুন তার জানাজার নামাজে সম্পন্নের পর দাফন করা হয়। মারা যাওয়ার একদিন পর সিলেট ওসমানীর পিসিআর ল্যাবে ফৌজিয়া বেগমের করোনা রিপোর্ট পজেটিভ আসে।

ফৌজিয়া বেগমের পরিবারের লোকজন জানান, তার করোনার কোন ধরনের উপসর্গ ছিল না। তিনি পেটের পীড়াজনিত কারণে ভূগছিলেন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়ার পর তিনি হৃদরোগে মারা গেছেন ডাক্তাররা আমাদের বলেন।

এবিটিভির সর্বশেষ প্রতিবেদন-

অচেতন বাবাকে হাসাতালে নিয়ে যেতে বাধা দেন আপন চাচা