সিলেটের কানাইঘাটে পুকুর থেকে গলায় পাটা বাঁধা অবস্থায় এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। রাতে ওই নারী তার শিশুসন্তানকে নিয়ে নিজ ঘরে ঘুমিয়েছিলেন।

সোমবার (২৯ আগস্ট) সকালে হাত বাঁধা অবস্থায় শিশুটিকে ঘরে পাওয়া যায়। আর বাড়ির পুকুর থেকে মুসলিমা বেগম নামের ওই নারীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তার গলায় পাটা বাঁধা ছিল।

নিহত মুসলিমা বেগম কানাইঘাট উপজেলার বীরদল আগফৌদ গ্রামের সৌদি প্রবাসী হেলাল আহমদের স্ত্রী।

পরিবার সূত্র জানায়, রোববার রাতে শিশুসন্তান আরিফ আফসারকে নিয়ে নিজের কক্ষে ঘুমাতে যান মুসলিমা বেগম। ভোরে আরিফের কান্না শুনতে পেয়ে পরিবারের লোকজন মুসলিমাকে ডাকতে গিয়ে দেখেন বাইরে থেকে রুম বন্ধ করে দেয়া। ভেতরে ঢুকে তারা শিশু আরিফকে হাত বাঁধা অবস্থায় দেখতে পান। মুসলিমাকে ঘরে না পেয়ে পরিবারের লোকজন খুঁজতে থাকেন। একপর্যায়ে তারা বাড়ির পুকুরঘাটে তার জুতা দেখতে পান।

রহস্যজনক এই নিখোঁজের খবর পেয়ে পুলিশ ওই বাড়িতে গিয়ে স্থানীয়দের সহায়তায় পুকুরে তল্লাশি চালায়। এসময় গলায় পাটা বাঁধা অবস্থায় মুসলিমার লাশ উদ্ধার করা হয়।

লাশ উদ্ধারকারী কানাইঘাট থানার এসআই অরূপ সাগর জানান, মুসলিমার মৃত্যু রহস্যজনক। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়া গেলে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

‌বিয়ানীবাজারে চলছে নতুন নিয়মে পাঠদান