এইচএসসি পরীক্ষা কিছুদিন আগে শেষ হয়েছে। এ বিরতিতে আনন্দ চলছে। চলুক…কিন্তু  এই এইচএসসি পরীক্ষা- পড়াশোনার জীবনে যে অনেক অনেক অর্থবহ তা সারা বাংলাদেশের শিক্ষার্থী বুঝতে পারলেও আমাদের বিয়ানীবাজারের শিক্ষার্থী ভাইবোনদের ক্ষেত্রে কিছুটা পার্থক্য দেখা যায়। হয়তো তারা বুঝতে পারছেনা করণীয়, নয়তো বিষয়টি বোধগম্য হচ্ছে না।

আমরা যদি লক্ষ্য করি ঢাকা কিংবা অন্যান্য জেলায় যেখানে শিক্ষার্থীরা ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয় (ঢাবি) , চট্টগ্রাম বিশ্ব বিদ্যালয় (চবি), রাজশাহী বিশ্ব বিদ্যালয় (রাবি), শাহজালাল প্রযুক্তি বিশ্ব বিদ্যালয় (শাবি) বা বুয়েটে ভর্তির জন্য হন্যে হয়ে পড়াশোনা করছেন, সেখানে আমরা বন্য হয়ে সেলফি কিংবা আড্ডা দিচ্ছি, দিব্যি সময় পার করছি।

আপনার জন্য একটা তথ্য:
আমাদের এই উপজেলা থেকে প্রায় প্রতি বছর তিন হাজার শিক্ষার্থী এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নেন। কিন্তু কৃতকার্যদের মধ্যে তিন জনও পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করার সুযোগ পাননা। আমার প্রশ্ন এখানে- কেন? অবশিষ্ট ২৯৯৭ জন কেন সুযোগ পায়না। নাকি এদের জিপিএ গ্রেড নেই (জিপিএ-৫ সহ)  নাকি তারা মেধাবীহীন?

প্রিয় আমার বিয়ানীবাজারের শিক্ষার্থীবৃন্দ, আপনার চাওয়াই আপনার ভবিষ্যৎ। ‘চাইলেই পারবেন’ স্লোগানকে বিশ্বাস করে ভবিষ্যতে বিয়ানীবাজার তথা দেশকে কোন কিছু উপহার দেওয়ার লক্ষ্যে এইচএসসি পরবর্তী অলস এই সময়টুকু, ঢাবি, চবি, রাবি, শাবি বা বুয়েটে সুযোগ পাওয়ার জন্য  মেধাকে কাজে লাগাও। সময় পার হলে ঐ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর দরজা খোলা তোমার পক্ষে সম্ভব হবে না।

বিয়ানীবাজার প্রবাসী অধ্যুষিত এলাকা হওয়ায় অনেকেই এসএসসি অথবািএইচএসসির পাঠ চুকিয়ে প্রবাস গমনের চিন্তা করেন।। ভাল কথা, কিন্তু বর্তমানে IELTS এ ভালো Score ছাড়া প্রবাসের দরজাও যে খোলা যায়না।

সকল প্রিয় অনুজ শিক্ষার্থীদের বলছি- এসো, ভবিষ্যতের সাফল্যের দরজার তালা খোলার চাবির ব্যবস্থা করি। হোক কোন বিশ্ববিদ্যালয় বা প্রবাস, সফল  হতেই হবে। এখনই তো সঠিক সময়। অলস না বসে পড়াশুনোয় নিজেকে নিবেদিত করো। বিজয় তোমার হবেই হবে।

আর মাত্র তিন মাস পরেই আমরা বিয়ানীবাজারবাসী , প্রিয় এইচএসসি পরীক্ষার্থী তোমাকে দেখতে চাই স্বনামধন্য কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে অথবা প্রবাসের কোন নামকরা বিশ্ববিদ্যালয়ে। এসব বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে চাইলে অবশ্য নিরন্তর পরিশ্রমই (চাবি) করতে হবে। একমাত্র পরিশ্রমই পারে তোমাকে এনে দিতে কাঙ্খিত সেই সাফল্য।

জয় হোক তোমার, তুমি চিরজীবী হও, ভবিষ্যৎ হোক আলোকিত।
লেখক- শিক্ষক