আজ ১২ ডিসেম্বর, গোলাপগঞ্জ মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে মুক্তিযুদ্ধের চূড়ান্ত বিজয়ের পূর্বে গোলাপগঞ্জ উপজেলা সদর পাকিস্তানি হানাদার মুক্ত হয়। গোলাপগঞ্জ মুক্ত দিবস উপলক্ষে বিগত এক যুগ থেকে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও স্বাধীনতা প্রিয় গোলাপগঞ্জবাসী নানা আয়োজনে পালন করে আসছে।

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের চূড়ান্ত বিজয়ের পূর্বক্ষণে ৯ ডিসেম্বর ভাদেশ্বর এবং ১১ ডিসেম্বর ঢাকাদক্ষিণ পাকহানাদার মুক্ত হয়। ১২ ডিসেম্বর ভোরে মুক্তিযোদ্ধা ও ভারতীয় বাহিনীর প্রতিরোধে পাকসেনারা গোলাপগঞ্জ উপজেলা ছেড়ে সিলেট শহরের দিকে পালিয়ে যায়। ঐ দিন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম ফিল্ড কমান্ডার জি এন চৌধুরী হুমায়ুন তার সহযোদ্ধাদের নিয়ে গোলাপগঞ্জ চৌমুহনীতে হানাদার মুক্ত পরিবেশে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন।

উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আলহাজ্ব সফিকুর রহমান বলেন, দিবসটি উপলক্ষে বিগত বছরের ন্যায় এবারো করোনা ভাইরাসের কারণে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সীমিত পরিসরে সকাল ১১টায় র‌্যালি, আলোচনা সভা ও কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাংচুরের কারণে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হবে।

এবিটিভির সর্বশেষ প্রতিবেদন-

বিয়ানীবাজারে গাছে গাছে পেরেক ঠুকে টাঙানো ব্যানার-ফেস্টুন