কন্ট্রাকশন ব্যবসায়ী বিয়ানীবাজার উপজেলার মুড়িয়া ইউনিয়নের চন্দ্রগ্রামের অধিবাসী মখলিছুর রহমান সিদ্দিক (৬৫) গত মঙ্গলবার ঢাকায় অপহৃত হন। আজ শুক্রবার সকালে ঢাকার কেরানিগঞ্জ এলাকা থেকে র‌্যাব তার লাশ উদ্ধার করে। লাশের ময়না তদন্ত শেষে স্বজনরা লাশ নিয়ে বিয়ানীবাজারের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছেন। মখলিছুর রহমান সিদ্দিক দীর্ঘদিন থেকে চট্টগ্রামের হালিশহর এলাকায় পরিবার নিয়ে বসবাস করছেন।

জানা যায়, চট্টগ্রামের হালিশহর বাসা থেকে ঢাকায় নির্মানাধীন কন্ট্রাকশন দেখতে মঙ্গলবার বের হন। এরপর বুধবার তার ব্যবহৃত মোবাইল থেকে তার বড় ছেলে ব্যাংক এশিয়ার কর্মকর্তা নুরুল ইসলামের সাথে অপহরণকারিরা যোগাযোগ করে দুই লাখ টাকা মুক্তিপন দাবি করে। পরিবারের ধারণা, ঢাকা কন্ট্রাকশন এলাকার আশপাশ থেকে তাকে অপহরণ করা হয়েছে। অপহরণকারিদের মুক্তিপনের দুই লাখ টাকা গতকাল বৃহস্পতিবার দেয়ার কথা ছিল। তাদের কথামতো টাকার ব্যবস্থা করা হয়। এরপর অপহরণকারিদের অসংলগ্ন কথাবার্তা ও টালবাহানায় নুরুল ইসলামের সন্দেহ হলে তিনি র‌্যাবের কাছে অভিযোগ করেন। র‌্যাব তল্লাশি চালিয়ে ঢাকার কেরানিগঞ্জ এলাকা থেকে আজ শুক্রবার সকালে তার লাশ উদ্ধার করে। মখলিছুর রহমান সিদ্দিক দীর্ঘ ৪৫ বছর থেকে চট্টগ্রামের হালিশর এলাকায় বসবাস করছেন। তাদের গ্রামের বাড়ি চন্দ্রগ্রামে।

নিহত মখলিছুর রহমান সিদ্দিক ৩ ছেলে ও ১ কন্যার জনক। তার দ্বিতীয় ছেলে চট্টগ্রামের একটি গার্মেন্টস্ ফ্যাক্টরিতে কর্মরত রয়েছেন। ছোট ছেলে ও মেয়ে লেখাপড়া করছেন। আজ শুক্রবার রাতে তার মরদেহ বিয়ানীবাজারে এসে পৌঁছাবে বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে।