বিয়ানীবাজার উপজেলার মাথিউরা ঈদগাহ বাজার অগ্রণী ব্যাংক শাখার চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী ফুলি মিয়ার হার্টের দুইটি বাল্ব অকার্যকর হয়ে গেছে। তার সু চিকিৎসার জন্য প্রচুর টাকার প্রয়োজন। এ পর্যন্ত তার পরিবারে জমানো টাকাসহ আর্থিক সহায়তার মাধ্যমে চিকিৎসা করানো হচ্ছে। ফুল মিয়ার শারিরীক অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে সিলেট থেকে ঢাকায় প্রেরণ করা হয়।

জানা যায়, ফুল মিয়া রমজান মাস থেকে জ্বরে ভোগলে স্থানীয় চিকিৎসক দেখিয়ে ঔষধ সেবন করেন। এতে জ্বর না কমায় তাকে পরিবারের সদস্যরা ঈদের পরই সিলেট ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। ওসমানি হাসপাতালের চিকিৎসক তার শারীরিক পরীক্ষা নিরিক্ষার করার পর দুইটি বাল্ব বিকল হয়েছে ধরা পড়ে।  গতকাল বৃহস্পতিবার চিকিৎসকরা ফুল মিয়ার শারীরিক অবস্থা জানিয়ে তার অভিভাবকদের শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ঢাকায় ভর্তি করার পরামর্শ দেন। আজ শুক্রবার তাকে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, তার হার্টের দুইটিবাল্ব স্বচল করতে কমপক্ষে দশ লাখ টাকার প্রয়োজন। এতো টাকা দরিদ্র পরিবারের কাছে নেই। বিত্তবান সহ সমাজের সকল শ্রেণি পেশার মানুষের কাছ থেকে সাহায্য প্রত্যাশায় একটি ব্যাংক হিসাব নম্বর বিয়ানীবাজার নিউজ ২৪কে তার পরিবার থেকে দেয়া হয়েছে। উদ্দেশ্য দেশে বিদেশে অবস্থানরত হৃদয়বানদের কাছ থেকে সাহায্য প্রত্যাশা। ব্যাংক হিসাব নম্বর- রুহুল আমিন, এ-সি নং ০২০০০০৭৯৪৯৩০৪, অগ্রণী ব্যাংক, মাথিউরা ঈদগাহ শাখা।

উল্লেখ, ফুল মিয়ার বাড়ি কিশোরগঞ্জ জেলার কটিয়াদি উপজেলার করগাও এলাকায়। তার পিতা মৃত গিয়াস উদ্দিন এবং মাতা ছুফিয়া বেগম।