২০শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ৬ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কেউ হারেনি তবু চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড

https://i2.wp.com/beanibazarnews24.com/wp-content/uploads/2019/07/344.jpg?resize=1200%2C630

৫০ ওভারে দুই দলের রান একই সংখ্যা থামে। সুপার ওভারেও ক্রিকেটের ভাগ্যদেবী রান আটকে ওই একই সংখ্যায়। ২৪১ রান করা দুই দল সুপার ওভারে তুলে ১৫ রান করে। ক্রিকেটের জটিল সমীকরণে বেশি বাউন্ডরি হাকানোয় চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড। অথচ ম্যাচ টাই হওয়ার পরও ম্যাচ না হারা নিউজিল্যান্ড কম বাউন্ডরি (২৪) দিয়ে ইনিংস গড়ায় রানার্সআপ হয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে। বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়ার নিঃশ্বাস দুরত্ব থেকেও খালি হাতে ফিরলো নিউজিল্যান্ড। শো কেসে জমা পড়লো আরেকটি রানার্সআপ ট্রফি।

নিউজিল্যান্ডের দেওয়া ২৪১ রানের লক্ষ্য ব্যাট করতে নেমে শেষ বলে অলআউট ইংল্যান্ড। ২ রানের সমীকরণ মেলাতে না পারায় ম্যাচ গড়ায় সুপার ওভারে। সেখানেও নানা নাটকীয়তায় ভরপুর। শেষ বলে রয়-বাটলার রসায়নে রান আউট গাপটিল বিশ্বকাপ ইংল্যান্ডের।

সুপার ওভারেও রান সমান থাকায় বাউন্ডারির হিসেবে বিশ্বকাপ জিতে নিয়েছে ইংল্যান্ড। ক্রিকেটের জন্ম আর বিশ্বকাপ ক্রিকেটের পথচলা যে দেশে সেই দেশই জিতল ক্রিকেট বিশ্বকাপ।

দুই ইনিংসেই ইংল্যান্ড পেয়েছে ভাগ্যের সহায়তা। বোলিং যেমন পেয়েছে বোলিংয়ে একইভাবে কয়েকবার পেয়েছে ভাগ্যের সহায়তা। ইংল্যান্ডের ব্যাটিংয়ের ৫০.৩ ওভারে মিড উইকেট থেকে কিপারের কাছে থ্রো করেন ফিল্ডার গাপটিল। থ্রো আসার আগেই দুই রান নেন স্টোকস ও উড। কিন্তু থ্রো কিপারের গ্লাসে যাওয়ার আগে মাঠে দিক পরিবর্তন করে বল চলে যায় বাউন্ডরির বাইরে। ৩ বলে ৯ রান থেকে ইংল্যান্ড এর রান নেমে আসে ২ বলে ৩ রানে। এতে মাঠেই ভেঙ্গে পড়েন গাপটিল। এ চার রানেই জেতা ম্যাচ হাতছাড়া করে নিউজিল্যান্ড। টানা দুই বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠেও শিরোপার দেখা পায়নি দুর্ভাগা নিউজিল্যান্ড।

সমান ২৪১ রানের ইংল্যান্ড থেমে যাওয়া ম্যাচ চলে যায় সুপার ওভারে। নিয়ম অনুয়ায়ী ব্যাটিংয়ের দ্বিতীয় ইনিংস সুপার ওভারে প্রথমে ব্যাট করবে। ইংল্যান্ড দুই বাউন্ডরির সাহায্যে তুলে ১৫ রান। ১৬ রানের টার্গেটে নেমে প্রথম বল ওয়াইড দেন আর্চার। এতে ৬ বলে ১৫ রানের টার্গেট পায় নিউজিল্যান্ড। আর্চারের পরের বলেই নিশান তুলে নেন ৬রান। টার্গেট দাড়ায় ৫ বলে ৯ রানে। দুই ব্যাটস ম্যান দুই রান করে তুলে নিলে শেষ বলে ২ রান করলেই চ্যাম্পিয়ন নিউজিল্যান্ড। স্টাইকে গাপটিল ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্ট বল ঠেলে দিয়ে দুই রানের জন্য দৌড় শুরু করেন। এক রান পূর্ণ হলেও বাটলাম-রয়ের যুগলে রান আউট গাপটিল। সমান রানে সুপার ওভারও টাই।কিন্তু ক্রিকেটের জটিল সমীকরণ আগেই থেকে জেনে নেয়া ইংল্যান্ড দলে মাঠে বাঁধ ভাঙ্গা উল্লাসে মেতে উঠেন। ভেঙ্গে পড়েন গাপটিল। মাঠের ও টিভির সামনে থাকা কোটি দর্শক তখন পর্যন্ত আরেকটি সুপার ওভার দেখা অপেক্ষায়। যারা ক্রিকেটের জটিল সমীকরণের বিষয়টি মাথায় রাখেননি তাদের কাছে এটি পরিহাসের মতো মনে হয়েছে। ম্যাচ না হেরে রানার্স আপ নিউজিল্যান্ড। অথচ মাঠে সব বিভাগে তারা ছিল দুর্দান্ত। শুধু ভাগ্যের সহায়তা পায়নি। উল্টো ম্যাচ না জিতে চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড। পুরো খেলায় বার বার ভাগ্যের সহায়তা পেয়েছে দলটি। ইনিংসে নিউজিল্যান্ডের চেয়ে বেশি বাউন্ডরি হাকানোর ফলে চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড।

রস টেইলরের আউটটিও তেমন এক ভাগ্যের বিষয়। রিভিউ হাতে না থাকায় কোন আপিল করার সুযোগ ছিল না টেইলরের সামনে। ভাগ্যের সহযোগিতা পেয়েই ইংল্যান্ড স্বাদ পেল বিশ্বকাপের রূপালি ট্রফির। ভাগ্য সব সময় সাহসীদের পক্ষালম্বন করে- এ ক্ষেত্রে কি ইংল্যান্ড সাহসী দল। যাই হোক ক্রিকেট ইতিহাসে বিশ্বকাপ ফাইনালের উম্মাদনা প্রথমবার দেখলো পুরো বিশ্ব। সেটা হয়তো লডর্স স্টেডিয়াম বলেই কি না।

A+ A-
Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ সংবাদ

ডটকম স্পোর্টিং ক্লাবের নতুন কমিটি গঠন ।। সভাপতি ইমরান সম্পাদক ফরহাদ

সাইকেলে ছয়শ কিলোমিটার পাড়ি দিলেন বিয়ানীবাজারের দুই সাইক্লিস্ট

বড়লেখায় নকল ঘি তৈরির কারখানা! মালিকের ১ বছরের কারাদণ্ড

সিলেটে র‍্যাবের হাতে ইয়াবাসহ বিয়ানীবাজারের এক যুবক আটক

গোলাপগঞ্জের ব্লাড ক্যান্সার আক্রান্ত আমিরুলের পাশে দাড়ালো 'প্রতিশ্রুতি'

সিলেটি ভাষায় গান গেয়ে ভাইরাল ঢাকাই বালক সৌরভ

ঘোষণাঃ

Translate »