১৬ই জুন, ২০১৯ ইং | ২রা আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

পাইপ ধরে ‘হিরো’ নাঈম হতে চায় পুলিশ ।। পড়ালেখার দায়িত্ব নিলেন গোলাপগঞ্জের যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী

https://i1.wp.com/beanibazarnews24.com/wp-content/uploads/2019/03/awaj.jpg?resize=1200%2C630

রাজধানী বনানীর এফআর টাওয়ারে আগুন লাগার পর হাজার হাজার জনতা যখন সেলফি-ভিডিওতে অস্থির ছিলো, ঠিক সেই মূহূর্তে ফায়ার সার্ভিসের একটি ছিদ্র পাইপ শক্ত করে ধরে ছিলো নাঈম নামের এক ছোট্ট শিশু। সেই নাঈমের পাইপ ধরার একটি স্থির চিত্র এখন সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঘুরে বেড়াচ্ছে। অনেকেই তা শেয়ার করে প্রশংসা করছে।

নাঈমের এই মানবিক কাজের জন্য এরই মধ্যে তাকে পাঁচ হাজার ডলার দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন এক যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী। যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী ওমর ফারুক সামি বোস্টন রোটারিয়ান ক্লাবের সভাপতি। তিনি  বলেন, “আমি নাঈমের কাজে খুবই খুশি হয়েছি। আমি জেনেছি নাঈম খুব কষ্ট করে লেখাপড়া করছে, সে পুলিশ অফিসার হতে চায়। আমি সেই জন্য আজ থেকে তার পড়ালেখার দায়িত্ব নিচ্ছি। তবে এই পাঁচ হাজার ডলার তাকে আমি পর্যায়ক্রমে দিবো।” এ বিষয়ে ইতোমধ্যে তার পরিবারের সঙ্গেও কথা হয়েছে বলে জানান ওমর ফারুক সামি।

পাইপ ধরে থাকা নাঈম থাকেন ঢাকার করাইল এলাকায়। তার বাবা তাদের ছেড়ে অনত্র সংসার করছেন। মা বাড়ি বাড়ি গিয়ে কাজ করেন। দুই ভাইবোনের মধ্যে নাঈম এবার পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ছেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে অন্যদের মতো সেও বনানীতে আসছিলো। নাঈম বলেন, “আমি কালকে দুপুরবেলা আইসে দেখি, এইহানে আগুন লাগছে। ফায়ার সার্ভিস অনেক কষ্ট করে আগুন নেভাচ্ছে। আর আমি তখন দেখি পাইপটা ফাটা। সেই জন্য আমি পাইপটা চাপ দিয়ে ধরে রাখলাম যাতে পানি কাছে গিয়ে আগুন নিভা যায়।”

“আমাকে অনেক লোকে পলিথিন এনে দিয়েছে, যাতে ওটা চাপ দিয়ে ধরে রাখতে পারি। তারপরে ধরলাম। পানি তখন হালকা হালকা পড়ছিলো।” নাঈম ফায়ার সার্ভিসকে ধন্যবাদ দিয়ে বলেন, “ফায়ার সার্ভিসকে অনেক ধন্যবাদ তারা আগুন নিভাতে পারছে।”

হাজার হাজার মানুষের ভিড়ে এসে তিনি কেনো ওই পাইপটা ধরলেন? ছোট্ট শিশু নাঈম বলেন, “আমার মনে হচ্ছিলো, শত শত লোক মারা যাবে। আমি যদি পাইপটা ধরে রাখতে পারি তাহলে ফায়ার সার্ভিস আগুনটা নিভিয়ে মানুষকে বাঁচাতে পারবে।”

এই নাঈম এর আগে গুলশান-১ ফায়ার সার্র্ভিসের পাইপ ধরে তাদের কাজে সহায়তা করেছিল। নাঈম বলেন, “সে সময়ও সেই পাইপটা ছিঁড়ে ছিলো। তার সঙ্গে আরো অনেকেই সেই পাইপ ধরেছিলো।”

নাঈম বড়ো হয়ে পুলিশ অফিসার হতে চান। তার দাবি, “পুলিশ এখানে (বনানীতে) অনেক সাহায্য করেছে। পুলিশ মানুষকে পিটিয়ে সরিয়ে দিয়েছে যাতে তারা সুষ্ঠুভাবে বাড়ি যেতে পারে।”

অথচ এই মহৎ কাজের জন্য কোনো ধরনের পুরস্কারও চান না নাঈম। তিনি বলেন, “আল্লাহ আমাকে এখানে পাঠিয়েছে। আমি পুরস্কার চাই না।”

নাঈমকে নিয়ে সারাদেশ ব্যাপী এ ধরনের প্রশংসার কথা তার মা কতোটুকু জানেন?

নাঈমের মা নাজমা বেগমের সঙ্গে কথা হয় প্রতিবেদকের। তিনি বলেন, “আমি প্রথমে জানতাম না। পরে জানলাম মানুষের কাছে। বড় ছেলে নাঈম ও ছোট মেয়ে সুমাইয়া আক্তার কাজলকে নিয়ে আমি করাইল বস্তিতে থাকি।”

নাজমা বেগম বলেন, “ছেলেকে নিয়ে তার অনেক স্বপ্ন। ছেলেকে তিনি অনেক দূর পর্যন্ত লেখাপড়া করাতে চান। ছেলেও মানুষের পাশে দাঁড়াতে চায়। মানুষের বিপদে কাজ করতে চায়।”

তিনি জানান, “স্বামী অনত্র বিয়ে করে সংসার করছে। তাদের খোঁজখবর নেয় না। আমি বাড়ি বাড়ি গিয়ে ঝিয়ের কাজ করে বহু কষ্টে সংসার চালাই।”

বনানীর এ ঘটনায় শ্রীলঙ্কান একজন নাগরিকসহ এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত হয়েছেন। আর আহত হয়েছেন শতাধিক। তবে পুলিশের হিসেব মতে নিহতের সংখ্যা ২৫।

উল্লেখ্য, ওমর ফারুক সামির বাড়ি সিলেটর গোলাপগঞ্জ উপজেলার ভাদেশ্বর ইউনিয়নের শেখপুর গ্রামে।

A+ A-
Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ সংবাদ

প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে আমিরাত সরকারের গোল্ডকার্ড পেলেন বিয়ানীবাজারের মাহতাবুর

জেলা প্রশাসকের সাথে বিয়ানীবাজারের ইউএনওর বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর

গোলাপগঞ্জে মহিলাসহ টাকা ছিনতাই- আটক-১

গোলাপগঞ্জে ইয়াবাসহ মাদক কারবারি আটক

সংক্ষিপ্ত সফর শেষে দেশে পৌর মেয়র আব্দুস শুকুর- বিমানবন্দরে অভ্যর্থনা

বৃষ্টির পানিতে প্লাবিত ঢাকাদক্ষিণ বাজার!

ঘোষণাঃ