২২শে মে, ২০১৯ ইং | ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বিয়ানীবাজারে নৌকার পালে হাওয়া, রসে ভরা আনারস, উড়ছে হেলিকপ্টার, ছুটছে হোন্ডার

https://i1.wp.com/beanibazarnews24.com/wp-content/uploads/2019/03/18march-final.jpg?resize=1200%2C630

বিয়ানীবাজার উপজেলা পরিষদ নির্বাচন যত ঘনিয়ে আসছে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীদের শিবিরে দেখা দিচ্ছে শংকা। প্রতিদিন পরিবর্তন হচ্ছে প্রার্থীদের মাঠের দৃশ্যপট। সময়ের সাথে সাথে পিছিয়ে পড়া প্রার্থীরাও প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ফিরে এসেছেন। নির্বাচনের ৭দিন পূর্বে মাঠের বিপরীত পরিস্থিতি অনুকুলে চলে এসেছে ৬ প্রার্থীর মধ্যে ৪জনের।

শেষ সময়ে এসে নৌকার পালে লেগেছে হাওয়া। আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আতাউর রহমান খান’র পক্ষে তৃণমূল নেতাকর্মীরা যুক্ত হয়েছেন। প্রচারণা চালাচ্ছেন উপজেলা ছাত্রলীগের কয়েকটি অংশ। ফলে গত কয়েকদিন প্রতিদ্বন্দ্বিতায় পিছিয়ে থাকা নৌকা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ফিরে এসেছে। নৌকা প্রতীক থেকে মূখ ফিরিয়ে রাখা উপজেলা আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীলরা বর্তমানে অনেকটা চ্যালেঞ্জের মূখে পড়েছেন। আগামী কয়েকদিনের মধ্যে তারাও প্রচারণা যুক্ত হতে পারেন। আওয়ামী পরিবার শেষ পর্যন্ত অবস্থান ধরে রাখতে পারলে আতাউর রহমান খান নৌকার প্রতীক নিয়ে শেষ হাসি হাসতে পারেন।

এদিকে শহীদ পরিবারের সন্তান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক স্বতন্ত্র (বিদ্রোহী) প্রার্থী জাকির হোসেনের আনারস’র প্রচারণা দ্রুত গতিতে চলছে। পৌরসভার কয়েকটি ওয়ার্ডসহ বেশ কিছু ইউনিয়নের আনারস মার্কা প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীদের জন্য চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিচ্ছে। রসে টুইটুম্বুর জাকিরের আনারস শেস পর্যন্ত এ অবস্থা ধরে রাখতে পারলে তাঁরও সম্ভাবনা দেখছেন রাজনীতিক-সামাজিক অঙ্গনের নেতৃত্বশীল ব্যক্তিবর্গ।

আনারসের সাথে পাল্লা দিয়ে আকাশে উড়ছে আবুল কাশেম পল্লবের হেলিকপ্টার। সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি স্বতন্ত্র (বিদ্রোহী) প্রার্থী পল্লব নির্বাচন প্রচারণা শুরুতেই এগিয়ে গেলেও তার অবস্থানে হানা দিচ্ছে অপর স্বতন্ত্র প্রার্থী জাকির হোসেনের আনারস ও শামীম আহমদের হোন্ডার। এ দুই প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীর নির্বাচনী কৌশল মোকাবেলা করে এগিয়ে যেতে পারলে আবুল কাশে পল্লবও হাসতে পারেন বিজয়ের হাসি।

গত দুইবার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার আভাস দিয়ে থেমে যান উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য স্বতন্ত্র (বিদ্রোহী) প্রার্থী শামীম আহমদ। শুরুতেই আওয়ামী পরিবারের সদস্য এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠনের নেতাকর্মীদের মোটর সাইকেল (হোন্ডার) মার্কার প্রচারণা যুক্ত করে তিনি প্রতিদ্বন্দি¦তায় রয়েছেন। উপজেলার দক্ষিণের দুইটি ইউনিয়নের প্রাপ্ত ভোট থেকেই তিনি কতটুকু এগিয়ে যেতে পারেন সেটি নির্ভর করবে। রাজনীতিক ও সামাজিক অঙ্গনের নেতৃত্বশীলরা মনে করেন দক্ষিণ অঞ্চল থেকে মোটামুটি অংকের ভোট নিয়ে আসতে পারলে শামীমের সম্ভাবনা রয়েছে।

এছাড়া প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকা ঘোড়া প্রতীক নিয়ে কুড়ারবাজার ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা জাতীয় পার্টিও সহসভাপতি আলকাছ আলী এবং দোয়াত কলম নিয়ে উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি আবুল হাসনাত নির্বাচনের ৭দিন পূর্বেও ভোটারদের তেমন আকৃষ্ট করতে পারেননি। তারা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ফিরে আসলে বর্তমানে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকা চার প্রার্থী যে কারো ভাগ্যের শিকে ছিড়ে যাবে। নির্বাচনের পূর্ব মুহূর্তে উপজেলার ভোটাররা কোন দিকে যাবেন তার উপর ভোটের শেষ হিসবে নির্ভর করবে।

A+ A-
Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ সংবাদ

নালবহর ওয়েলফেয়ার ট্রাষ্ট ইউকে'র উদ্যোগে অস্বচ্ছল পরিবারের মধ্যে নগদ অর্থ বিতরণ

গোলাপগঞ্জে ভেজাল বিরোধী অভিযানে দুই প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

বিয়ানীবাজারে ছাত্র জমিয়তের প্রবাসী সংবর্ধনা ও ইফতার মাহফিল কাল

নালবহরে ক্বিরাত ও হামদ-নাত প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্ব সম্পন্ন

সাবেক ক্রিকেটারদের বিশ্বকাপ পর্যালোচনা- সেমিফাইনালের চার দলে নেই বাংলাদেশ!

কোপায় মেসির সঙ্গী আগুয়েরো-দিবালা, নেই ইকার্দি

ঘোষণাঃ