১৯শে মার্চ, ২০১৯ ইং | ৬ই চৈত্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বিয়ানীবাজারে ফসলি জমির উপরিভাগের মাটি বিক্রির হিড়িক, উৎপাদন হ্রাসের শঙ্কা

https://i0.wp.com/beanibazarnews24.com/wp-content/uploads/2019/03/top-soil.jpg?resize=1200%2C630

বিয়ানীবাজারে উর্বর ফসলি জমির উপরিভাগের মাটি (টপ সয়েল) কেটে বিক্রির হিড়িক পড়েছে। আর্থিকভাবে সাময়িক লাভবান হওয়ার আশায় অনেক কৃষক তাদের জমির মাটি বিক্রি করে দিচ্ছেন। এতে ফসল উৎপাদন ব্যাপকহারে হ্রাস পাওয়ার আশঙ্কা করছে স্থানীয় কৃষি অফিস।

উপজেলা কৃষি অফিসসূত্রে জানা গেছে, জমির উপরিভাগের মাটি (টপ সয়েল) হচ্ছে ফসলি জমির প্রাণ। জমির উপরের ৮ থেকে ১০ ইঞ্চিই হলো টপ সয়েল। আর ওই অংশেই থাকে মূল জৈবশক্তি। কৃষকরা জমির টপ সয়েল বিক্রি করে জমির উর্বরা শক্তিই বিক্রি করে দিচ্ছেন কৃষকরা। জমির এ ক্ষতি ১০ বছরেও পূরণ হবে না। যেভাবে মাটি বিক্রি হচ্ছে তাতে করে ফসল উৎপাদন আশঙ্কাজনক হারে হ্রাস পেতে পারে।

সরেজমিন ঘুরে জানা গেছে, দুবাগ, কুড়ারবাজার, শেওলা, চারখাই, আলীনগর, লাউতা, মুড়িয়া ও তিলপারা ইউনিয়নসহ উপজেলার বিভিন্ন এলাকার অধিকাংশ উর্বর ফসলি জমির উপরিভাগের মাটি কেটে বিক্রির হিড়িক পড়েছে। কিছু অসাধু মাটি ব্যবসায়ী কৃষকদের অর্থের প্রলোভন দেখিয়ে এসব ফসলি জমির উপরিভাগের মাটি কিনে নিচ্ছেন। পরে এসব জমির এক থেকে দেড় ফুট মাটি কেটে চড়া দামে ইটভাটায় বিক্রি করে তারা। স্থানীয় কতিপয় প্রভাবশালী ব্যক্তির ছত্রছায়ায় কিছু মাটি ব্যবসায়ী প্রতি বছরের ডিসেম্বর থেকে শুরু করে মার্চ/এপ্রিল পর্যন্ত মাটির ব্যবসা করেন। অন্যদিকে, বড় বড় ট্রাক ও ট্রাক্টর-ট্রলিতে করে এসব মাটি পরিবহনের সময় গ্রামীণ রাস্তাঘাটও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। নানা দুর্ভোগের মধ্য দিয়ে সাধারণ মানুষকে চলাচল করতে হচ্ছে এসব রাস্তায়।

চারখাই ইউনিয়নের শিকারপুর গ্রামের ফরিদ উদ্দিন ও আবুল হাসান নামের দুজন কৃষকের সঙ্গে আলাপকালে তারা জানান, জমির উপরের অংশ থেকে দু-এক ফুট পরিমাণ মাটি তারা বিক্রি করছেন। এতে তেমন কোনো সমস্যা হবে না। জমির মাটি কেটে নিলে ফসল আরও ভালো হবে বলেও মনে করেন তারা।

সোহেল আহমদ নামের একজন ট্যাক্টর চালক ও মাটি ব্যবসায়ী জানান, অনেক দিন ধরেই মাটি কেনাবেচার ব্যবসা করছেন তারা। এতে জমির কোনো ক্ষতি হয় না। দীর্ঘদিন ধরে জমিতে পলি পড়ে পড়ে উঁচু হয়ে যায়। পরে সেসব উঁচু জমি থেকে মাটি কেটে তারা কৃষকের উপকারই করছেন। এতে কৃষকরা নগদ টাকাও পাচ্ছেন, জমির ফসলও ভালো হয়।

এ ব্যাপারে বিয়ানীবাজার উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আনিসুজ্জামান বলেন, ফসলি জমির মূল উর্বরা শক্তিই হচ্ছে টপ সয়েল। টপ সয়েল কেটে নেয়ায় পরবর্তী একযুগেও ফসলি জমির উর্বরা শক্তি পূরণ হয়না। এজন্য বিভিন্ন সময়ে কৃষকদেরকে টপ সয়েল বিক্রি থেকে বিরত থাকতে পরামর্শ দেওয়া হবে। এছাড়া সুনির্দিষ্ট তথ্য পেলে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাও নেওয়া হবে।

A+ A-
Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ সংবাদ

শামীমের ফেইসবুক স্ট্যাটাস নির্বাচনের নামে প্রহসনের রাজনীতি বন্ধ করুন

সিলেটে বেড়াতে এসে ট্রাক চাপায় সেনা কর্মকর্তার স্ত্রী-ছেলে নিহত

আতাউর রহমান খান'র বাড়িতে আবুল কাশেম পল্লব!

মুড়িয়ায় আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুর রব এর ইন্তেকাল।। বিভিন্ন মহলের শোক

বিয়ানীবাজার উপজেলা নির্বাচন- জামানত বাজেয়াপ্ত হলো যাদের

ফলাফল ঘোষণা শেষে দক্ষিণ বিয়ানীবাজারে হাজারো মানুষের বিজয় উল্লাস

ঘোষণাঃ