২৬শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং | ১৩ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বিয়ানীবাজারের শিক্ষক বিনয়েন্দু’র হত্যাকারিরা অধরা- শংকিত বাদির পরিবার

https://i2.wp.com/beanibazarnews24.com/wp-content/uploads/2019/02/beanibazar-4444.jpg?resize=1200%2C630

বিয়ানীবাজার লাউতা ইউনিয়নের জলঢুপ এলাকার অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক বিনয়েন্দু ভূষণ চক্রবর্তীকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করে ঘাতকরা। এ ঘটনায় এজাহারভূক্ত এক আসামী ও তার ভাইকে পুলিশ গ্রেফতার করলেও অপর তিনজন রয়েছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। এতে নিহত শিক্ষকের পরিবার আতংকের মধ্যে রয়েছেন। আসামীদের গ্রেফতার করতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে তাগদা দিলেও দায়িত্বশীলরা আমলে নিচ্ছে না বলে অভিযোগ করেন নিহতের পরিবারের সদস্যরা।

নিহত শিক্ষক বিনয়েন্দুর একমাত্র ছেলে বসুদেব চক্রবর্তী বলেন, দুই মাসের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও আসামীদের পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি। নিজ বাড়িতে শিক্ষক পিতাকে যেভাবে হত্যা করেছে ঘাতকরা- তাতে আমরা নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন। আসামীদের স্বজনরা বিভিন্ন মাধ্যমে হুমকি দিচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, আসামীরা গ্রেফতার না হওয়ায় আমরা আতংকের মধ্যে রয়েছি। কোনভাবে আমাদের শংকা কাটছে না- পুলিশের বর্তমান ভূমিকায় ভরসা হারিয়ে ফেলেছি।

গত ৩০ নভেম্বর নিজ বাড়িতে ঘাতকরা শিক্ষক বিনয়েন্দু ভূষণের শরিরে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে তিনি অগ্নিদগ্ধ হলে তাকে প্রথমে বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং পরে সিলেট ওসমানি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরবর্তীতে ঢাকার একটি হাসপাতালে ৬দিন চিকিৎসা শেষে গত ৬ ডিসেম্বর তিনি মারা যান। এ ঘটনার তাঁর স্ত্রী শিপ্রাচক্রবর্তী বাদী হয়ে বিয়ানীবাজার থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার এজাহারে ওয়াসিম রাজা, দুলাল আহমদ বাবর, রিপন লাল নাথ ও জয় লাল নাথসহ অজ্ঞাত আরও ৩/৪কে আসামী করা হয়।

পুলিশ অভিযান চালিয়ে মামলার ৪নং এহাজারভুক্ত আসামী জয় লাল নাথ ও তার ভাই জয়ন্ত লাল নাথকে গ্রেফতার করে। আসামী জয় লাল নাথ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দী দিয়েছে। বর্তমানে ভাইসহ সে সিলেট জেল হাজতে রয়েছে।

পুলিশ জানায়, মামলার ১নং আসামী ওয়াসিম রাজা কানাডায় রয়েছে। অপর দুই আসামী বাবর ও রিপন সিলেটের বাইরে আত্মগোপন করে আছে। তাদের অবস্থান সনাক্ত করার চেষ্টা চলছে। শিগগিরই তাদের গ্রেফতার করা হবে।
মামলার এজাহার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মূল আসামী ওয়াসিম রাজার সাথে নিহত শিক্ষক বিনয়েন্দু ভূষণ চক্রবর্তীর ডাক্তার কন্যা শর্মিলার হৃদ্যতা ছিল। বিষয়টি জানাজানি হলে বেঁকে বসে উভয় পরিবার। ওয়াসিম রাজা আনুষ্ঠানিকভাবে বিয়ের প্রস্তাব দিলে ভিন্ন ধর্মালম্বি হওয়ায় শিক্ষক বিনয়েন্দু ভূষণ তা প্রত্যাখ্যান করেন। এরপর ডা. শর্মিলাকে বিয়ে করছে বলে এলাকায় ভূয়া কাবিন দেখিয়ে প্রচার চালায় ওয়াসিম রাজা ও তাদের স্বজনরা। এ নিয়ে প্রতিবাদ করলে শিক্ষক বিনয়েন্দু ভূষণকে দেখে নেয়ার হুমকি দেয় ঘাতকরা। এ হত্যাকা-ের মূল পরিকল্পনাকারি কানাডা প্রবাসী ওয়াসিম রাজা।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও বিয়ানীবাজার থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) জাহিদুল হক বলেন, আসামীদের গ্রেফতারে আমরা চেষ্টা করছি। দুই আসামীর অবস্থান সিলেট বিভাগের বাইরে রয়েছে। শিগগিরই তাদের গ্রেফতারের অভিযানে চালানো হবে। তিনি বলেন, মামলার অন্যতম আসামী ও এ হত্যাকান্ডে মূল পরিকল্পনাকারি কানাডা প্রবাসী। জেলহাজতে থাকা অপর আসামী জয় লাল নাথ আদালতে স্বীকারোক্তি মুলক জবানবন্দি দিয়েছে। নিহতের পরিবারের কোন শংকার বিষয়টি অমুলক। আমরা শতভাগ চেষ্টা করছি।

 

A+ A-
Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ সংবাদ

বিয়ানীবাজারের সিলেটীপাড়া ওয়েলফেয়ার সোসাইটি কমিটি গঠিত

জাফলংয়ের পিয়াইনে নিখোঁজ এমসি কলেজ শিক্ষার্থী অনিক

বর্ণাঢ্য আয়োজনে বিয়ানীবাজারে কর্মরত সাংবাদিকদের ফ্যামিলি নাইট উদযাপন

লন্ডনে সাউন্ডটেক ক্যারাম ক্লাব'র চ্যাম্পিয়ন ট্রপি ড্র ও চ্যারিটি টুর্নামেন্ট পুরুস্কার বিতরণ

পরিবেশ মন্ত্রী শাহাব উদ্দিনের নির্দেশে গুঁড়িয়ে দেয়া হলো সেই ইটভাটা

প্রিয় নুসরাত

ঘোষণাঃ