২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ইং | ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

রাষ্ট্রপতির কাছে বিয়ানীবাজারে নিহত হোসেনের ঘাতকের শাস্তির দাবিতে প্রবাসী ভাইয়ের খোলাচিঠি

https://i2.wp.com/beanibazarnews24.com/wp-content/uploads/2018/12/president-letter.jpg?resize=1200%2C630

বিয়ানীবাজারে পৌরশহরে শিশু নির্যাতনের প্রতিবাদ করায় সন্ত্রাসী হামলায় নিহত কলেজ শিক্ষার্থী হোসেন উদ্দিনের ফ্রান্স প্রবাসী বড়ভাই সাঈদ উদ্দিন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ঘাতক সুমনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়ে মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে খোলা চিঠি লিখেছেন।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে সামাজিক যোগযাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রকাশিত নিহত কলেজ শিক্ষার্থী হোসেন উদ্দিনের ফ্রান্স প্রবাসী বড়ভাই সাঈদ উদ্দিন’র খোলা চিঠি ‘বিয়ানীবাজারনিউজ২৪’ এর পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলে-

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের
মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে খুলা চিঠি ঃ
পত্রের শুরুতে আন্তরীক শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা রইল আপনার প্রতি । আসা করি মহান সৃষ্টিকর্তার অশেষ রহমতে ভালোই আছেন। যাই হোক আমরা কিন্ত ভালো নাই।
অাজ আমার ছোটভাইটা তার পারিবারিক এবং প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার সঠিক প্রয়োগ করতে গিয়ে শহীদ হয়েছে।সামান্য পাউরুটি দিয়ে নাস্তা করে বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজের একাদশ শ্রেণীর পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। মাকে বলেছিল বাড়ি ফিরে খাব।কলেজ থেকে ফেরার পথে দেখতে পায় একটা প্রাপ্তবয়স্ক ছেলে ছোট্ট একটি শিশুকে নির্যাতন করছে।
বিষয়টি দেখে তাদের মধ্যস্ততা এবং অন্যায়কারীর প্রতিবাদ করতে এগিয়ে অাসে।
জানিনা অন্য কোন হৃদয়বান নাগরিক ঐ যায়গায় উপস্থিত থাকলে কি করতেন!
ঠিক তখনই ঐ প্রাপ্তবয়স্ক পাষন্ডটা একটি স্টিলের লাঠি দিয়ে অামার কলিজারটুকরা ভাইটার মাথায় উপর্যুপরি আঘাত করে।
অামার নিষ্পাপ ভাইটি গলাকাটা মুরগীর মত মাটিতে ছটফট করে জ্ঞান হারায়।
স্থানীয়দের সহযোগিতায় জ্ঞান ফিরলেও নিজের পরিবারের সহযোগিতায় হাসপাতালে ভর্তি হয় এবং দীর্ঘ ৪৮ঘন্টা মৃত্যুর সাথে পাঞ্জালড়ে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করে।হয়না মায়ের অার প্রাণপ্রিয় পুত্রকে অাদরকরে খাওয়ানো।
সবচেয়ে বেশি কষ্ট হয় ঠিক তখনই যখন অামার ভাইর লাশটা নিয়ে নাটক শুরু হয়।
সকাল ৯টায় মৃত্যু হলেও পুরোটা দিন লাশ পোস্ট মডেম করতে দেওয়া হয়নি।
ঘাতক কে বাঁচাতে শুরু হয় ষড়যন্ত্র!
বদলে দেওয়া হয় মেডিকেল সারর্টিফিকেট। থানায় বার বার কল করলেও রিসিভ করতে চায়না দ্বায়িত্বরত ওসি।
দীর্ঘচেষ্টার পর কিছু ভালোমানুষের সহযোগিতায় ২৬-২৭ঘন্টা পর অামার ভাইয়ের পোস্ট মডেম এবং পরে দাফন হয়।
এখন প্রশ্ন হচ্ছে এর পিছনে কার কার হাত অাছে?
স্থানীয় সরকার এবং মন্ত্রীসভার কারো ইশারা ছাড়া কি এগুলো সম্ভব?
অাপনিতো বাংলাদেশের আইনবিভাগ, শাসনবিভাগ ও বিচারবিভাগের সকল শাখার আনুষ্ঠানিক প্রধান এবং বাংলাদেশের সামরিক বাহিনীর সর্বাধিনায়ক।
অাপনি কি চান সোনার বাংলায় এভাবে দলীয় প্রভাবে অপরাধীরা পার পেয়ে যাক?
এভাবে চলতে থাকলে দেশের নতুন প্রজন্মগুলো কি ভালো মানুষ হয়ে বেড়ে উঠার প্রেরণা পাবে?
উপরোক্ত বিষয় জানার পর অাপনার হৃদয়খানি যদি সামান্যতম কাঁদে অার সঠিক বিচারের নির্দেশ দেন তবে আমারা আপনার কাছে চির কৃতজ্ঞতা থাকবো । তাতে মনে হয় অাদরের ভাইটার আত্মাও শান্তি পাবে । আর আপনার কাছেও সেই অনুরোধটুকোই করে চিঠি লেখা এখানেই ক্ষান্ত দিলাম ।
ইতি আপনার দেশের একজন শহীদ ছাত্রের বড়ভাই ।

প্রসঙ্গগত, সোমবার (৩ ডিসেম্বর) বিকাল ৩টার দিকে বিয়ানীবাজার পৌরসভার নিদনপুর গ্রামের প্রবাসী কমর উদ্দিনের পুত্র ফাহিম আহমদ (১০) বাইসাইকেল নিয়ে রাস্তায় বের হলে তাকে লাথি দেয় একই এলাকার মুহিব আলীর পুত্র সুমন আহমদ। বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজ থেকে পরীক্ষা দিয়ে বাড়ি ফেরার পথে এ ঘটনা দেখে প্রতিবাদ করলে শিক্ষার্থী হোসেন আহমদের মাথা লক্ষ্য করে ভারি বস্তু দিয়ে আঘাত করে সুমন। এতে ঘটনাস্থলেই জ্ঞান হারান তিনি। স্থানীয়রা আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। তার শারিরীক অবস্থা অবনতি হওয়া সিলেটের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল বুধবার (৫ ডিসেম্বর) সকাল ১০টার দিকে তার মৃত্যু ঘটে।

A+ A-
Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ সংবাদ

বৈরাগীবাজারে সোনালী অতীত প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত

বড়লেখায় পুলিশের হাতে আন্ত:জেলা চোরচক্রের ৮ সদস্য গ্রেফতার

ওসমানীনগরে লাখ টাকার ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করলেন মাহি উদ্দিন সেলিম

বিয়ানীবাজারের দেউলগ্রাম মহাপ্রভুর আখড়ায় লীলা সংকীর্ত্তন রবিবার

আগামী ৬ মে থেকে শুরু হচ্ছে মাহে রামাদ্বান

শুদ্ধসুরে জাতীয় সঙ্গীত- জেলার সেরা বিয়ানীবাজারের খলিল চৌধুরী আদর্শ বিদ্যানিকেতন

ঘোষণাঃ