১৫ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

গল্পকথা আর বাস্তবের কলকাতা

https://i2.wp.com/beanibazarnews24.com/wp-content/uploads/2018/11/kolllll.jpg?resize=1200%2C630

সেদিন কথাসাহিত্যিক অমর মিত্রের সঙ্গে ইনবক্সে অালাপ হচ্ছিল। তিনি তখন ইউটিইউবে বাংলাদেশের টিভি নাটক দেখছিলেন। চঞ্চল চৌধুরী অভিনীত একটি নাটক। অমরদা প্রায়ই বাংলাদেশের নাটকগুলো দেখেন। তাঁর মতো পশ্চিমবঙ্গের অসংখ্য দর্শক দেখেন। ইউটিইউবে। তারা বাংলাদেশের টিভি চ্যানেলগুলো দেখতে পান না। এতদিন অামি জানতাম, বাংলাদেশের চ্যানেলগুলো না দেখানোর পেছনে পশ্চিমবঙ্গ বা ভারত সরকারের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। অামার জানাটা ভুল ছিল। এবার কলকাতায় এসে ভারতের এক যুগ্মসচিবের সঙ্গে অালাপ করে জানলাম, এ ব্যাপার সরকারি কোনা বিধি-নিষেধ নেই। মূলত ক্যাবল অপারেটর ও টিভি মিডিয়া মালিক চক্র বাংলাদেশের চ্যানেলগুলো ব্লক কর রেখেছে। তাদের ভয়, বাংলাদেশের চ্যানেলগুলো ওপেন করে দেওয়া হলে তাদের চ্যানেলগুলো দর্শক হারাবে। দর্শক ভাগ হয়ে যাবে।

শুধু সেই সচিব নন, অনেকের সাথে অালাপ করেও একই তথ্য পাওয়া গেল। তথ্যটা সঠিক। কারণ, সরকারি অফিসগুলোতে যে ডিশলাইন চলে সেই লাইনে সার্চ করলেই বাংলাদেশি চ্যানেলগুলো দেখা যায়। যদি সরকারি বিধি-নিষেধ থাকত তাহলে সরকারি অফিসের ডিশলাইনে বাংলাদেশের চ্যানেলগুলো দেখা যেত না।

দুই.
কলকাতার মানুষ সম্পর্কে ঢাকায় অনেক গল্পকথা চালু অাছে। যেমন, কলকাতার মানুষেরা কৃপণ, অতিথিপরায়ণ নয়; কারো বাড়িতে বেড়াতে গেলে বলে ‘খেয়ে এসেছেন, না গিয়ে খাবেন?’ অতিথিকে অর্ধেক মিষ্টি খেতে দিয়ে বলে, ‘অর্ধেকটার পুরোটা খাবেন কিন্তু দাদা!’ দুপুরে কারো বাড়িতে বেড়াতে গেলে খেতে না দিয়ে উল্টো বলে, ‘অাবার এলে কিন্তু খেয়ে যাবেন দাদা!’ কলকাতার মানুষের কৃপণতার এমন অনেক গল্পকথা চালু অাছে বাংলাদেশে।

অামি অনেক বার কলকাতায় এসেছি। তবে এবারের মতো এত দীর্ঘ সময় কখনো থাকিনি। এবার কিংবা অতীতেও অামি কলকাতার মানুষদের উপরোক্ত ধরনের কৃপণতার মুখোমুখি হইনি। উল্টো বরং তাদের অতিরিক্ত অাপ্যায়নকে কখনো কখনো বিরক্তিকর মনে হয়েছে। কলকাতার বাইরে নদীয়া-মুর্শদাবাদ এলাকার মানুষদের অাপ্যায়নে, অান্তরিকতায় মুগ্ধ হয়েছি।

কে জানে, হয়ত অামি যাদের সঙ্গে মিশি তারা কৃপণ নন। কৃপণদের সাথে অামার দেখা হয় না। গত কদিনে কলকাতার জীবনচিত্রকে খুব গভীরভাবে দেখার চেষ্টা করেছি। অামার কাছে মনে হলো না এখানকার মানুষরা ততটা কৃপণ, যতটা ঢাকায় শুনে থাকি। হ্যাঁ, তারা সাশ্রয়ী, অপচয় খুব একটা করে না, এটা বলা যায়।

ঢাকার কেউ এসে কলকাতাবাসীর জীবনযাত্রা দেখলে প্রথমে এখানকার মানুষকে কৃপণ বলেই মনে করবে। যেমন, এখানকার মধ্যবিত্তরা একসঙ্গে ১ কেজি মিষ্টি কিনবে না, ঢাকাবাসীর মতো একসঙ্গে ৫ কেজি মাছ বা মাংস কিনবে না। না কেনার পেছনে কারণ অাছে। এই প্রসঙ্গে সংস্কৃতিজন সন্দ্বীপন ধর বললেন, ‘অামার বাসায় প্রতিদিন যদি ৪টা মিষ্টির প্রয়োজন হয় অামি কেন ১০টা কিনব? অাগামী কাল দরকার হলে অামি তো অাবার তাজা মিষ্টি কিনতে পারছি, তাজা মাছটা বা তাজা মাংসটা কিনতে পারছি। ফ্রিজে রেখে বাসি জিনিস কেন খাব?’ সন্দ্বীপনদার যুক্তিটা পছন্দ হলো।

তিন.
এবারের কলকাতায় এসে একটা জিনিস খুব ভালো করে জানলাম। বাংলাদেশের অনেক প্রকাশকের বিরুদ্ধে অভিযোগ অাছে যে, লেখকদের সম্মানীর ব্যাপারে তারা নয়-ছয় করে থাকেন, ঠিকমতো সম্মানী দেন না, বই কত কপি ছাপেন তার সঠিক অঙ্কটি লেখককে জানান না, লেখকদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে বই ছাপেন ইত্যাদি ইত্যাদি। অভিযোগগুলো মিথ্যে নয়। অধিকাংশ প্রকাশকের মধ্যে শুদ্ধতা নেই। যদিও অামি কখনো (মাত্র একজন ছাড়া) কোনো অশুদ্ধ প্রকাশকের পাল্লায় পড়িনি। সাম্প্রতিককালে শুদ্ধ প্রকাশকের সংখ্যা বেড়ছে। ভবিষ্যতে অারো বাড়বে। কলকাতার প্রকাশকদের বিরুদ্ধে এই অভিযোগগুলো বেশি। কবি জয় গোস্বামীর সঙ্গে অালাপকালে একবার তিনি অভিযোগটি করেছিলেন। গতকাল গল্পকার স্বপ্নময় চক্রবর্তী এবং অনুবাদক অভিজিৎ মুখার্জিও একই অভিযোগ করলেন। এসব ব্যাপারে কলকাতার তুলনায় বাংলাদেশের অবস্থান ভালোই বলতে হচ্ছে।

মজার ব্যাপার হচ্ছে, বাংলাদেশের অনেক লেখক কলকাতার প্রকাশকদের টাকা দিয়ে বই প্রকাশ করেন। কয়েকজনের নামও জানতে পারলাম। কেন যে তারা এসব করে! এভাবে কি বড় লেখক হওয়া যায়? পাঠকের কাছে পৌঁছা যায়?

কলকাতা, ৫ নভেম্বর ২০১৮ ।। লেখক- উপন্যাসিক ( লেখকের ফেসবুক থেকে নেয়া)

A+ A-
Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ সংবাদ

জকিগঞ্জের সন্তান ডা. মোর্শেদ সিলেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম উপাচার্য

কোয়াব বিয়ানীবাজার ক্রিকেট একাডেমীর উদ্বোধন অনুষ্ঠান শুক্রবার

সিলেট-০৬ আসন।। কে পাচ্ছেন বিএনপি'র ধানের শীষ

পিএসএলে খেলবেন সিলেটের জাকির!

বিয়ানীবাজারে ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) উপলক্ষ্যে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা আগামী রবিবার

ফিরে দেখা- সংসদ নির্বাচন ২০০৮।। সিলেটের ৬টি আসনের নির্বাচনী অবস্থা

ঘোষণাঃ