১৬ই অক্টোবর, ২০১৮ ইং | ১লা কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলার রায়ে দন্ডিত সিলেটের হারিছ চৌধুরী এখন কোথায়?

https://i1.wp.com/beanibazarnews24.com/wp-content/uploads/2018/10/haris.jpg?resize=1200%2C630

বিএনপি নেতা হারিছ চৌধুরী চারদলীয়জোট ক্ষমতায় থাকাকালে ২০০৪ সালের ২১শে আগস্ট সংঘটিত ভয়াবহ গ্রেনেড হামলা মামলায় দন্ডিত হয়ে আলোচনায় এসেছেন। মঙ্গলবার ঘোষিত রায়ে হারিছ চৌধুরীকে যাবজ্জীবন কারাদ- দিয়েছেন আদালত।

এরপর থেকে সাধারণ মানুষের মধ্যে হারিছ চৌধুরীর অবস্থান নিয়ে চলছে নানা কানাঘুষা। অনেকেই বলছেন, হারিছ চৌধুরী জীবিত নেই আবারও কেউ বলছেন জীবিত আছেন।

চারদলীয় জোট সরকারের আমলের অন্যতম আলোচিত নাম হারিছ চৌধুরী। ছিলেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক সচিব। হাওয়া ভবনের আশীর্বাদপুষ্ট হয়ে যিনি পরিণত হন অসীম ক্ষমতাশালী নেতায়। বিএনপি-জামায়াতসহ চারদলীয় জোট সরকারের পতনের সঙ্গে সঙ্গেই পতন ঘটে হাওয়া ভবন সাম্রাজ্যের। পতন ঘটে হারিছ চৌধুরীরও। ওয়ান-ইলেভেনের শুরুতে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতায় আসার পর হাওয়া ভবন ছেড়ে নিজেই হাওয়া হয়ে যান হারিছ চৌধুরী।

এরপর আর দেশমুখো হননি এক সময়ের এ প্রভাবশালী রাজনীতিবিদ। বিএনপি জোট সরকারের আমলে হাওয়া ভবনের আশীর্বাদ পেয়ে দুর্নীতির বরপুত্র হয়ে উঠা হারিছ চৌধুরী ওয়ান-ইলেভেনের প্রথম দিন থেকেই আত্মগোপনে রয়েছেন। দেশান্তরী হওয়া হারিছ চৌধুরী এখন জীবিত ও সুস্থ আছেন। তার আত্মীয় ও ঘনিষ্ঠজনরা একই কথা বলেছেন। তবে আইনি ঝামেলা এড়াতে তারা কেউ নাম প্রকাশ করেননি।

ভারত ও ইরানে বেড়ানোর পর ঘুরেফিরে এখন লন্ডনেই সপরিবারে বসবাস করছেন হারিছ চৌধুরী। তবে প্রকাশ্যে নয়, আছেন গা ঢাকা দিয়ে। যাতে প্রবাসী বাংলাদেশী নাগরিকদের মুখোমুখি হতে না হয়। হারিছের স্ত্রী-সন্তানরাও আছেন লন্ডনে। সেখান থেকেই খোঁজখবর রাখেন দেশের। তবে রাজনীতির খবর আগের মতো তেমন আর রাখেন না। ওখানে থাকা বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গেও কোনো যোগাযোগ নেই তার। ২০১১ সালে লন্ডনে দেখা করতে গেলে তারেক রহমান দেখা দেননি হারিছকে। ২০০৭ সালে দেশের শীর্ষ দুর্নীতিবাজদের তালিকায় নিজের নাম দেখেই দেশত্যাগ করেছিলেন হারিছ চৌধুরী।

জানা যায়, হারিছ চৌধুরীর ৫ ভাইয়ের মধ্যে তিন ভাই দেশে থাকেন। সপরিবারে ইরানে থাকেন অপর ভাই ডা. মুকিত চৌধুরী। ৫ ভাই ও ৫ বোনের মধ্যে পলাতক হারিছ চৌধুরী সবার বড়। হারিছ চৌধুরীর স্ত্রী জোসনা আরা বেগম, ছেলে নাঈম সাফি চৌধুরী ও মেয়ে সামিরা তানজিম ওরফে মুন্নু আরা থাকেন লন্ডনে। মেয়ে মুন্নু আইন পেশায় ও ছেলে সাফি নরওয়েভিত্তিক একটি তেল কোম্পানিতে কাজ করছেন। হারিছের ভাইদের মধ্যে ডা. মুকিত চৌধুরী পরিবার-পরিজন নিয়ে থাকেন ইরানে। আরেক ভাই হাসনাত চৌধুরী ব্যাংকার ছিলেন। তিনি এখন আর জীবিত নেই। হাসনাতের সন্তানদের নিয়ে স্ত্রী থাকেন ঢাকায়। অপর ভাই সেলিম চৌধুরীও ঢাকায় থাকেন। বাড়িতে থাকেন ভাই কামাল চৌধুরী। তবে কামাল চৌধুরী বাড়ির সম্পদ দেখাশোনা করলেও মামলার তেমন খোঁজখবর নেন না।

ওয়ান-ইলেভেনের পর থেকে অদৃশ্য হয়ে যাওয়া হারিছ চৌধুরীর ওই বাড়িটি বর্তমানে নিস্তব্ধ। প্রভাব খাটিয়ে বাড়ির ভেতরেই পোস্ট অফিস, কৃষি ব্যাংক, মডেল স্কুল, তফশিল অফিস, দাতব্য চিকিৎসালয়, এমনকি পুলিশ ফাঁড়িও স্থাপন করেছিলেন। আশপাশের সব রাস্তা কাঁচা হলেও তার বাড়িতে যাওয়ার আড়াই কিলোমিটার রাস্তা পিচঢালা। আট একর জমিতে গড়ে তোলা হারিছ চৌধুরীর বিলাসবহুল বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, পুরো বাড়িটিই একরকম জনমানবহীন।

হারিছ চৌধুরীর উত্থান : ঢাকার নটর ডেম কলেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্র সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার   হারিছ চৌধুরী শুরুতে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত ছিলেন। পরে ’৭৭ সালে জিয়াউর রহমানের ডাকে সাড়া দিয়ে যোগ দেন জাগদলে। এরপর আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি হারিছ চৌধুরীকে। একে একে সিলেট জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক, কেন্দ্রীয় যুবদলের সেক্রেটারি, সহ-সভাপতিসহ বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও যুগ্ম মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করেন তিনি। ১৯৭৯ ও ১৯৯১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-৫ (কানাইঘাট-জকিগঞ্জ) আসনে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে পরাজিত হন। প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক সচিব হওয়ার পর তো অনেকটা আলাদিনের চেরাগ হাতে পেয়ে যান তিনি।

যেভাবে পালিয়ে যান : সেনাসমর্থিত সরকার দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে ঝটিকা অভিযান শুরু করলে আত্মগোপনে চলে যান হারিছ চৌধুরী। প্রথমে কিছুদিন হবিগঞ্জে আত্মগোপনে ছিলেন। এরপর আসেন সিলেটে। সে সময় দুদকের (দুর্নীতি দমন কমিশন) শীর্ষ দুর্নীতিবাজদের তালিকায় ওঠে আসে হারিসের নাম। তখনই দেশ ছেড়ে পালানোর সিদ্ধান্ত নেন তিনি। ২০০৭ সালের ২৯ জানুয়ারি সিলেটের জকিগঞ্জ সীমান্ত দিয়ে নানাবাড়ি ভারতের করিমগঞ্জে পাড়ি জমান। এর কয়েকদিন পর ভারত থেকে ইরান হয়ে যুক্তরাজ্যে পাড়ি জমান হারিছ চৌধুরী।ধারনা করা হচ্ছে এখনও তিনি যুক্তরাজ্য অবস্থান করছেন।

A+ A-
Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ সংবাদ

বড়লেখা উপজেলা কমপ্লেক্সের সম্প্রসারিত ভবন উদ্বোধন

বিয়ানীবাজারে দখলকৃত গোপাট উদ্ধার

বিয়ানীবাজারে শারদ উৎসব- আজ উদযাপন হচ্ছে মহাসপ্তমী

বিয়ানীবাজারে যুব জমিয়তের বৃক্ষরোপন কর্মসূচী পালিত

গোলাপগঞ্জে স্ত্রীর মামলায় স্বামী গ্রেপ্তার ।। থানায় খাবার নিয়ে এলেন

মহাষষ্ঠী পূজার মাধ্যমে বিয়ানীবাজারে শারদ উৎসবের শুরু

ঘোষণাঃ