২৭শে মে, ২০১৮ ইং | ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বিয়ানীবাজারে ছিনতাইকারিদের গ্রেফতারে পুলিশ ব্যর্থ ।। প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় বাড়ছে ছিনতাই

https://i1.wp.com/beanibazarnews24.com/wp-content/uploads/2018/05/cintai.jpg?resize=720%2C395

বিয়ানীবাজারে কয়েকদিন বিরতীদিয়ে ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটলেও এর সাথে জড়িত ছিনতাইকারিরা অধরা রয়েছে। ছিনতাইয়ের শিকার হওয়ার লোকজন অভিযোগ দায়েরের পরও পুলিশ ছিনতাইকারিদের গ্রেফতার করতে ব্যর্থ হয়েছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, পুলিশ ছিনতাইকারিদের গ্রেফতার করতে যতটুকু তৎপরতা প্রয়োজন তার শিকি ভাগও করে না। তাদের দাবি এসব ছিনতাইকারিরা প্রভাবশালীদের প্রশয়ে থাকায় পুলিশ তাদের এড়িয়ে যাচ্ছে। ছিনতাইকারিরা দীর্ঘদিন থেকে রাজনৈতিক পরিচয় ও রাজনৈতিক নেতার আশ্রয়ে থেকে ছিনতাই ঘটনায় লিপ্ত রয়েছে।

বুধবার দুপুর একটার দিকে মোল্লাগ্রামের তানজিলা নামের এক মহিলা বিয়ানীবাজার পৌরশহরের একটি বাণিজ্যিক ব্যাংক থেকে টাকা তুলে অটোরিক্সা করে যাওয়ার পথে ছিনতাইয়ের শিকার হন। শহরের জামান প্লাজার ফাস্ট সিকিউরিটি ইসলামি ব্যাংক থেকে দুপুর ১২.৪৩ মিনিটে টাকা তুলেন। এরপর ব্যাংক থেকে নেমে অটোরিক্সা করে বাড়ি যাওয়ার পথে নিদনপুর কেন্দ্রীয় মসজিদের সামনে যাওয়ার পর দুই মোটর সাইকেলে ৪ ছিনতাইকারি তাদের গতিরোধ করে। মহিলার হাতে ছুরিকাঘাত করে টাকা ও মোবাইল থাকা বেগটি ছিনিয়ে নেয়। তার বেগে ২ লাখ ২১ হাজার টাকা ছিল।

অভিযোগ পেয়ে পুলিশ ফাস্ট সিকিউরিটি ও ডাচ বাংলা ব্যাংকের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে ছিনতাই ঘটনার সাথে জড়িতদের সনাক্ত করার চেষ্টা করে। পুলিশ অটোরিক্সা চালক বদরুলকে গ্রেফতার করেছে। ছিনতাইয়ের ঘটনায় তার যুক্ত থাকার বিষয়টি তদন্তে পেয়েছে পুলিশ। কিন্তু সরাসরি যুক্ত ছিনতাই ঘটনার সাথে যুক্তদের গত দুই দিনেও পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি। ছিনতাই হওয়া টাকা ও মোবাইল উদ্ধার হয়নি।

পুলিশ জানায়, অটোরিক্সা চালক বদরুল এর মোবাইলে ছিনতাই ঘটনার কয়েক মিনিট পূর্বে দুইবার কল আসলে সে কথা বলে। কিন্তু এ ঘটনার পর থানায় তার মোবাইল চেক করে কললিস্ট থেকে ওই দুই নম্বর পাওয়া যায়নি। এ নিয়ে সে কয়েকবার অসংলগ্ন কথা বললেও পরে স্বীকার করেছে নম্বর দুইটি ডিলেট করেছে।

এদিকে গত ২০ এপ্রিল ইনার কলেজ রোডের দাসগ্রাম সড়কের মূখে এক ফটোগ্রাফার ছিনতাইয়ের শিকার হন। বিয়ের অনুষ্ঠানে ছবি তোলার কথা বলে তাকে ছিনকাইকারিরা মোবাইল ফোনে ডেকে এনে সরঞ্জাম ছিনতাই করে। ওই ফটোগ্রাফারের কাছ থেকে দুইটি এসএলআর, দুইটি লেন্স, ফ্লাস লাইট ও মোবাইল ছিনিয়ে নেয় দুই ছিনতাইকারি। বড়লেখার ওই ফটোগ্রাফার একদিন পর বিয়ানীবাজার থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন এবং অভিযুক্ত ছিনতাইকারিদের মধ্যে একজনের পরিচয় উল্লেখ করেন। এছাড়া যোগাযোগকারি দুইটি মোবাইল নম্বরও পুলিশকে দেন। কিন্তু গত এক মাসেও বিয়ানীবাজার থানা পুলিশ এ ঘটনার কোন সুরাহা করতে পারেনি। ছিনতাইকারি গ্রেফতার কিংবা ছিনতাই হওয়া মালামাল উদ্ধার করতে পুলিশ ব্যর্থ হয়েছে।

ফটোগ্রাফারের ছিনতাই ঘটনার তদন্ত কর্মকর্তা বিয়ানীবাজার থানার এসআই মহসিন বলেন, এক অভিযুক্ত ধরতে পৌরশহরে ও তার বাড়িতে গিয়েও পাইনি। তার অবস্থান জানার চেষ্টা করছি। আমি এখন ছুটিতে আসার পর দ্রুত সময়ের মধ্যে তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা করবো।

মহিলার টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় গ্রেফতারকৃত আসামীর ৫দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে জানিয়ে থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) জাহিদুল হক বলেন, ছিনতাই ঘটনার সাথে যুক্ত এরকম কয়েকজনকে আমাদের তদন্তে সনাক্ত হয়েছে- তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। এছাড়া গ্রেফতারকৃত চালক বদরুলকে রিমান্ডে আনার পর জিজ্ঞাসাবাদে জড়িত অন্যদের অবস্থান নিশ্চিত হওয়া যাবে।

A+ A-
Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ সংবাদ

ওসমানি হাসপাতালের সাবেক উপপরিচালক ডা. সালামসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে দুদক’র মামলা

গোলাপগঞ্জে প্রতিপক্ষের হামলায় নিজ ক্ষেতে ৩ ভাই আহত

সিলেটে বজ্রপাতে তিন ভাইয়ের মৃত্যু

গোলাপগঞ্জে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে ৪টি প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

বিয়ানীবাজার সিএনজি চালকদের কাছে অসহায় যাত্রীরা- প্রতিদিন ঘটছে অপ্রীতিকর ঘটনা

ভারতে অনুপ্রবেশকালে কুলাউড়ায় শিশুসহ দম্পতি আটক

ঘোষণাঃ