২৫শে এপ্রিল, ২০১৮ ইং | ১৩ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজের স্নাতক ৩য় বর্ষের শিক্ষাসফর সম্পন্ন

https://i1.wp.com/beanibazarnews24.com/wp-content/uploads/2018/03/picnik.jpg?resize=720%2C422

১২ ফেব্রুয়ারি শেষ হয়েছিল বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজের স্নাতক পাস (২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষ) ৩য় বর্ষের চুড়ান্ত পরীক্ষা। চার বছর কারও আবার ছয় বছরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আর প্রিয় সহপাঠীদের ছেড়ে যাওয়ার ক্ষনটা ছিল বেদনাদায়ক। সেইদিন এই চলে আসা যেন শেষ আসা না হয় সেই দেখা যেন শেষ দেখা না হয় আবার সকলের সম্মিলিত হওয়ার প্রয়াসে ঐ দিন পরীক্ষা শেষে বাহিরে এসেই তাৎক্ষনিক সিদ্ধান্ত হয় সকল বিভাগের শিক্ষার্থীদের নিয়ে শিক্ষাসফর আয়োজন করা হবে। দু’একজন ছাড়া সবার ই মত শিক্ষাসফরের পক্ষে। কিন্তু কথা হলো সবাইকে সমন্বয় করা দায়িত্ব নেবে কে? সাথে সাথে কেউ একজন বললো ‘হোয়াসআপ গ্রুপ খোলেই তো হয়। সবাই আপডেট জানলো।’ যেই কথা সেই কাজ আতাউর চট করে খাতা বের করে নাম আর সবার নাম আর মোবাইল নাম্বার লেখা শুরু করেলেন। খোলা হলো হোয়াসআপ গ্রুপ। এই গ্রুপেই চলে সকল পরিকল্পনা, মতামত সহ সকল তথ্য আদান প্রদান। সবাই তো যাওয়ার পক্ষে এবার এটি বাস্তবায়নের দায়িত্ব নেবে কে? যেভাবই হোক শিক্ষা সফর বাস্তবায়ন করতেই হবে সেই প্রত্যয় নিয়ে এবার কাজ শুরু করলেন জাফর ভাই। সহযোদ্ধা হিসেবে পাশে পেলেন আতাউর, শরীফ, অনিক সহ আরও দুই একজন। কলেজের অধ্যক্ষ দ্বারকেশ চন্দ্র নাথ স্যার হঠাং করে অসুস্থ হয়ে যাওয়াতে শিক্ষা সফরের অনুমতি পেতে খানিকটা বিলম্ব হলেও অনুমতির পাশাপাশি কলেজের শিক্ষাসফর খাতে যেকোন সময়ের তুলনা সবচেয়ে বিগ বাজেট (১৫,০০০) বরাদ্দ দিলেন। শিক্ষাসফরের আহবায়ক করে দিলে এনামুল স্যারকে।

কলেজ থেকে বরাদ্দ পাওয়া ১৫ হাজার আর শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৩শ টাকা হারে চাঁদা সংগ্রহ করে সফরের সকল প্রস্তুতি নিয়ে ২৫ মার্চ কলেজ থেকে শ্রীমঙ্গল চা বাগান ও মাধবপুর লেকে শিক্ষা সফরের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

শিক্ষা সফরের দিনঃ

বিবিএস বিভাগের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক সহপাঠী না থাকায় আমি নিজেও যাওয়ার কথা ছিলো না। রাতে বন্ধু সফি ফোন দিয়ে জানালো আমাকেই যেতেই হবে সে আমার নাম এন্টিসহ চাদার টাকা ও পরিশোধ করে রেখেছে। সকাল ৮ টায় কলেজ ক্যাম্পাস থেকে বাস যোগে সবাই রওয়ানা দেবে।

নিজের সিদ্ধান্ত পাল্টিয়ে সকালে রাওয়ানা দিলাম কলেজ ক্যাম্পসে। যথাসময়ে বন্ধু জাবেরসহ কলেজ ক্যাম্পাসে হাজির হলাম। ততক্ষণে বাস রেডি। বাসের সামনে কাটুন ভর্তি লাল টি শার্ট আর সাদা ক্যাপ রাখা সবাই যার যার সাইজ মতো সংগ্রহ করে পড়ে নিচ্ছেন। জাফর ভাই অন্য কয়েকজনকে নিয়ে ব্যস্ত রাধূনী থেকে খাবার ও অন্য প্রয়োজনীয় জিনিস পত্র গাড়িতে রাখার জন্য। আমাদের সফর সঙ্গী কলেজের সহযোগী অধ্যাপক এনামুল হক স্যার, রহিম উদ্দিন স্যার শিক্ষক জহির স্যার এবং হারুন স্যারসহ সকল ডেলিগেট মিলে কলেজে রাষ্ট্র বিজ্ঞান ভবনের সামনে ফটোসেশন শেষে সকাল সাড়ে ৯টায় কলেজ ক্যাম্পাস থেকে বাসে যাত্রা শুরু করলো।

কলেজ ক্যাম্পাসে ডেলিগেটবৃন্দ

শুরুতে মাইকে কোরআন তেলওয়াত করেন হাসনাত। পরে শুরু হয় যার যার মত গান গাওয়া কৌতুক বলা। গাড়িতে সবচেয়ে বেশি আনন্দ দেন হারুনুর রসিদ স্যার। স্যারের গান ও কৌতুক যেন ভ্রমনের আনন্দটা কয়েকগুন বাড়িয়ে দিয়েছিলো। গান শুনান এনাম স্যার, রহিম স্যার, জহির স্যারও।

দুপুর ১ টার দিকে বাস থামে শ্রীমঙ্গলের চা গবেষণা কেন্দ্র। বাস থেকে নেমে যোহরের নামাজ আদায় করে ঘন্টা খানেক ছবি তোলা, আর সেখানের সৌন্দর্য দর্শনে। পরে সেখানে রাবার বাগনে দুপুরের খাবার শেষে আবারও বাসে যাত্রা শুরু এবার গন্তব্য লাউয়াছড়া বন উদ্যানে। বিকেল ৩টার দিকে সেখানে পৌছায় বাস। বিকাল ৫ টা পর্যন্ত সেখানে অবস্থান শেষে রাওয়ানা বিয়ানীবাজারের উদ্দেশ্যে। খানিকটা ক্লান্ত হয়ে সবাই বাসে উঠলে হারুন স্যার, তারেক, সফি,অনিক, জবরুল, টিপু গানে সব ক্লান্তই যেন আনন্দে পরিণত হয়েছিল।অবশেষে রাত ৯ টার দিকে বিয়ানীবাজার এসে পৌছায় বাসটি।

A+ A-
Print Friendly, PDF & Email

সর্বশেষ সংবাদ

সুরমা নদীতে অজ্ঞাত মহিলার লাশ

সংবাদ সম্মেলনের একটি অংশের প্রতিবাদ জানিয়েছেন সুপাতলার সুভাষ দাস

গোলাপগঞ্জের চারটি সড়কের সংস্কার কাজের উদ্বোধন করলেন শিক্ষামন্ত্রী

সংবাদ সম্মেলনে প্রবাসী মনজ্জির আলী- নিজের জমি সংস্কার করতে গিয়ে হামলা-মামলার শিকার হয়েছি

যুবলীগ নেতা এড. আব্বাছের শয্যাপাশে শিক্ষামন্ত্রী।। প্রয়োজনীয় চিকিৎসা নিশ্চিত করতে নির্দেশ প্রদান

বিয়ানীবাজার পৌর বাস টার্মিনালের ভূমির দখল হস্তান্তর

ঘোষণাঃ